এবার এইচএসসির নির্বাচনী পরীক্ষা হবে না।

করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবে এবারও যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হয়নি এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। গত বছরে পাবলিক এই পরীক্ষায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের অটো পাস দেয়া হলেও এবার সে সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া হয়নি। এ পরিস্থিতিতে এবছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হবে না। এজন্য কলেজগুলোও পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে এ সংক্রান্ত কোন ফিও আদায় করা যাবে বলে জানিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।

এদিকে, আগামী ২৯ জুন থেকে শুরু হয়ে ১১ জুলাই পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনলাইনে বিলম্ব ফি ছাড়া চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। আর ১২ জুলাইয়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের ফি অনলাইনে বোর্ডে পাঠাতে হবে শিক্ষার্থীদের।

এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বোর্ড বলছে, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষে কোন নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। এ সংক্রান্ত কোন ফি আদায় করতে পারবেনা কলেজগুলো। ২০ জুন ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এস এম আমিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ফরম পূরণের এ তথ্য জানানো হয়েছে।‌

জানা গেছে, করোনার কারণে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ওপর এইচএসসির ফল দেয়া হয়। আর ২০১৯ সালের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা দ্বাদশ শ্রেণিতে কোন ক্লাসই করতে পারেননি। তাই, তাদের জন্য সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ৮৪ দিন ক্লাস করিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে। এ পরিস্থিতিতে নির্বাচনী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অনলাইন ফরম পূরণ শুরু হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০২১ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীরা আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ জুলাই পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফরম পূরণ করতে পারবেন। বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফি ১২ জুলাই পর্যন্ত জমা দেয়া যাবে। এর আগে ২৮ জুন রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকা সাপেক্ষে অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের তালিকাভুক্তির জন্য সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর সাদা কাগজে আবেদন করতে হবে।

এদিন জিপিএ উন্নয়ন ও এক বা দুই বিষয়ের পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশগ্রণে ইচ্ছুক পরীক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর সাদা কাগজে আবেদন করতে হবে। ২০২০ সালে মূল্যায়নের মাধ্যমে জিপিএ-৫ এর কম পাওয়া শিক্ষার্থীরা জিপিএ উন্নয়নের সুযোগ পাবেন এবং তাদের সব বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হবে। তবে, ২০১৯ সালের অংশিক বিষয়ে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা এ সুযোগ পাবেন না। ২৮ জুন ঢাকা বোর্ডের ওয়েবসাইটে শিক্ষার্থীদের তালিকা প্রকাশ হবে।

এইচএসসি পরীক্ষার ফি বাবদ পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে পত্র প্রতি ১০০ টাকা, ব্যবহারিকের ফি বাবদ পত্র প্রতি ২৫ টাকা, একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্টের ফি বাবদ পরীক্ষার্থী প্রতি ৫০ টাকা, মূল সনদ বাবদ ১০০ টাকা, বয়েজ স্কাউট ও গার্লস গাইড ফি বাবদ ১৫ টাকা এবং জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ফি বাবদ পরীক্ষার্থী প্রতি ৫ টাকা নেয়া হবে। এছাড়া অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীপ্রতি ১০০ টাকা অনিয়মিত ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রাইভেট পরীক্ষার্থী ফি বাবদ ১০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কেন্দ্র ফি বাবদ প্রতি পরীক্ষার্থীকে ৪০০ টাকা ও ব্যবহারিক পরীক্ষার ফি বাবদ পরীক্ষার্থীদের পত্র প্রতি ২৫ টাকা দিতে হবে।

এইচএসসির ফরম পূরণের মোট ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে ঢাকা বোর্ড। বোর্ড বলছে, বিজ্ঞান শাখার জন্য ২ হাজার ৫০০ টাকা, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য ১ হাজার ৯৪০ টাকা করে ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোন পরীক্ষার্থীর ৪র্থ বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা থাকলে এ ফিয়ের সাথে অতিরিক্ত ১৪০ টাকা যুক্ত হবে। আর মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার কোন শিক্ষার্থীর নৈর্বচনিক বিষয়ে ব্যবহারিক থাকলে বিষয় প্রতি আরও ১৪০ টাকা যোগ হবে।

বোর্ড বলছে, নির্ধারিত ফিয়ের অতিরিক্ত কোন ফি আদায় করা যাবে না। এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে ফরম পূরণের প্যানেল বন্ধ করাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Mahfuz Mia

মাহফুজ মিয়া বাংলাদেশের অন্যতম শিক্ষা বিষয়ক ওয়েবসাইট পড়ালেখা ২৪.কম এর প্রতিষ্ঠাতা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

Back to top button